Welcome
আইন ও বিচার আন্তর্জাতিক খেলাধুলা জাতীয় নিউজ ব্রেকিং নিউজ ভিডিও নিউজ সাক্ষাৎকার

তালতলীতে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটে আগুন লেগে ১৩টি দোকান পুড়ে ছাই

এম ইমরান জিয়া | নিজস্ব প্রতিনিধি: বরগুনার তালতলীতে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারনে আগুন লেগে ১৩টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে সর্বহারা হয়ে পড়েছেন স্থানীয় এ দোকান মালিকরা।গতরাত সোমবার  ৯.০০ মিনিটের সময়ে উপজেলার ৪নং সারিকখালী ইউনিয়নের কচুপাত্রা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, কচুপাত্রা বাজারে কসমেটিকসের একটি দোকান, গত চার পাঁচ দিন ধরে বন্ধ ছিল। সে দোকানের মালিক কসমেটিকসের মালামাল কেনার জন্য ঢাকায় গেছে। তাদের ধারণা ওই দোকানে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের আগুন লেগেছে। এবং আশপাশের ১৩ টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। প্রায় ঘন্টা খানিক সময় ধরে আগুন জ্বলছিল ঐ বাজারে। পরে স্থানীয়দের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। ততক্ষণে ফায়ার সার্ভিস পৌঁছে গেলেও কোনো কাজে আসেনি বলে জানা গেছে। ঠিক সময়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে আসলে ক্ষতি অনেকটা কম হতো বলে জানায় স্থানীয়রা।

শারিকখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাদশা তালুকদার জানায়, ফায়ার সার্ভিসের গাফিলতির কারণে ক্ষতি অনেক বেশি হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস আসতে আসতে স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। তিনি আরো বলেন, কচুপাত্রা ব্রিজের পশ্চিম দিক থেকে প্রায় ১৩ টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে প্রায় অর্ধকোটি টাকারও বেশি ক্ষতি হয়েছে।

আগুন লাগার বিষয়টি জানতে পেরে ওই দিন রাতেই তালতলী উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) কাওসার হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান রেজবিউল কবির জমাদ্দার,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, তালতলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুজ্জামান মিয়াসহ আরো অনেকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা বলেন, মুহূর্তের মধ্যে ধাউধাউ করে আগুন ছড়িয়ে পরে আশপাশের দোকান গুলোতে। বাজারে থাকা লোকজনের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন। প্রায় দেড় ঘন্টা পরে স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন স্থানীয়রা। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সঠিক সময় ঘটনাস্থলে আসেননি যার কারণে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশের ১৩ টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আগুনে কসমেটিকস, মুদি দোকান,কাপুরের দোকানসহ ঔষধের দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে দোকানগুলোতে থাকা নগদ টাকা ও মূল্যবান মালামাল পুড়ে অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

আমতলী ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার তামিম হাসান বলেন, আমতলী-তালতলী মহা সড়কের খুবই খারাপ অবস্থা। রাস্তার মধ্যে বড় বড় গর্ত হয়ে গেছে তার পরেও আমরা দ্রুত আসার চেষ্টা করছি। আমরা যখন খবরটি পেয়েছি তার প্রায় পঁচিশ, ত্রিশ মিনিটের মধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছে গেছি। আমাদের দুইটি ইউনিট কাজ করেছে। স্থানীয়রা ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের সহযোগিতায় দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছি।

তালতলী উপজেলা চেয়ারম্যান রেজবিউল কবির বলেন, আগুন লাগার খবর পেয়ে আমরা উপজেলা প্রশাসন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছে এবং ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা যাতে আবার পুনরায় তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করতে পারে তেমন উদ্যোগ নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসক ও এমপি মহোদয়ের কাছে জানানো হয়েছে।

এবিষয়ে তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কাওসার হোসেন জানায়,গতরাতে আগুন লেগেছে। যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তাদের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছি। সরকারের পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব ক্ষতিপুরন দেয়ার চেষ্টা করবো।

Related posts

রোববার থেকে ট্রাকে পণ্য বিক্রি করবে টিসিবি

admin

রেলে ১০-১২ হাজার লোক নিয়োগ দেওয়া হবে: মন্ত্রী

admin

মৌলভীবাজারে রোহিঙ্গা সন্দেহে ১৪ জন আটক

admin

Leave a Comment

Translate »