অগাস্ট ৩, ২০২১
Welcome
জাতীয় নিউজ বাংলাদেশ ব্রেকিং নিউজ সাক্ষাৎকার

রাজাকার, আলবদর ও আলশামসের তালিকা প্রকাশ নিয়ে অনিশ্চয়তা

একুশের আলো রিপোর্ট || মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী রাজাকার, আলবদর ও আলশামসের তালিকা প্রকাশ নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না। ২০১৯ সালের ১৫ ডিসেম্বর ঘটা করে ১০ হাজারের বেশি রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। পরে সেই তালিকা নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে মন্ত্রণালয়। একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

জানানো হয়, ২০২০ সালের স্বাধীনতা দিবসের আগেই নতুন করে রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করা হবে। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেল, এ ধরনের তালিকা প্রকাশের এক্তিয়ারই নেই সরকারের। শেষ পর্যন্ত জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) আইন সংশোধন করে সেই সুযোগ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়। সাবেক মন্ত্রী শাজাহান খান এমপির নেতৃত্বে একটি উপকমিটিও গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি রাজাকারের তালিকা সংগ্রহের প্রক্রিয়া ও প্রকাশের বিষয়টি নির্ধারণ করবে। এই কমিটির সুপারিশেই জামুকা আইন সংশোধন করা হচ্ছে।

জানা গেছে, আইন সংশোধন করে রাজাকারের তালিকা তৈরি এবং তা প্রকাশের এক্তিয়ার মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে দেওয়া হবে। তালিকা প্রকাশের উদ্দেশ্যে জামুকা আইনের প্রস্তাবিত সংশোধনী ইতিমধ্যে মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেছে। আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং নিয়ে সেটি সংসদে উত্থাপনের কথা ছিল গেল বিজয় দিবসের আগেই, কিন্তু তা হয়নি। আর এ নিয়ে কার্যত সব ধরনের উদ্যোগ থমকে রয়েছে।

গতকাল রবিবার এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, সংসদের আগামী অধিবেশনে এটি বিল আকারে উপস্থাপন করা হতে পারে। আগামী তিন মাসের মধ্যে এই অধিবেশন শুরু হবে। তিনি বলেন, আইন পাশ না হওয়া পর্যন্ত রাজাকারের তালিকা প্রকাশের বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেওয়া সম্ভব নয়। তবে তিনি বলেন, আগামী স্বাধীনতা দিবস ২৬ মার্চের মধ্যে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আরো বলেন, বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও শান্তি কমিটির যেসব নথি থানা ও জেলা কালেক্টরেটে ছিল, সেসব নথির অনেকগুলোই সুকৌশলে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। তাই পরিপূর্ণ তালিকা পাওয়া কঠিন হচ্ছে। তিনি বলেন, তত্কালীন ১৯ জেলার রেকর্ডরুমে যেসব দালিলিক প্রমাণ ছিল, সেগুলো দিতে বলা হয়েছিল; কিন্তু তা-ও এখন পাওয়া যাচ্ছে না। তবে এসব তালিকা খুঁজে পেতে সরকারের একাধিক সংস্থা কাজ করছে।

 

Related posts

পাথরঘাটা নাচনাপাড়ায় পনেরো হাজার পরিবার চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত

admin

জিয়ার খেতাব বাতিল প্রশ্নে তদন্ত কমিটি গঠন

admin

গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত, ভাড়া নৈরাজ্য চরমে

admin

Leave a Comment

Translate »